Payoneer MasterCard Scams in Bangladesh

Payoneer MasterCard Scams in Bangladesh

- in Scams
69
Comments Off on Payoneer MasterCard Scams in Bangladesh

বাংলাদেশে পেওয়োনিয়ার মাস্টারকার্ড প্রতারণা
Payoneer MasterCard Scams in Bangladesh

প্রতারণার দুনিয়ায় সততা ছাড়া কোন কিছুরই অভাব থাকে না। প্রতারণার সফলতার জন্যে তাই প্রতি নিয়তই নতুন নতুন পদ্ধতি আবিস্কার হচ্ছে।তারণার পথের কোন শেষ নেই। এবারে লিখছি পাইয়োনিয়্যার প্রি-পেইড মাষ্টার কার্ড Payoneer Pre-Paid MasterCard নিয়ে বাংলাদেশের চলমান ঠকবাজি আর কেরামতির কারবার নিয়ে।

ঠিকানা বা পোষ্ট অফিস জটিলতা সহ বিভিন্ন কারনে যখন Payoneer MasterCard টি হাতে না আসে অথবা একাধিক মাস্টারকার্ড এর প্রয়োজন মেটাতে আমরা অনলাইন বা অফলাইনে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের কাছ থেকে অবৈধ Payoneer Free MasterCard ক্রয় করি। আর এখানেই যত সর্ব নাশের ফাকঁ ফোঁকর। বিষয়টি অনেকেরই সময়মত জানা হয়না।

Google Search তো আমরা জানিই। গুগল সার্চে একটি মাস্টার কার্ড কেনার জন্য যখন আমরা হুমরী খেয়ে পড়ি।গুগল দাদাজী তখন আমাদের জন্য বিভিন্ন Bangla Forum Site, Google Plus Page অথবা Facebook Group নয়ত Facebook Page থেকে অজ্ঞাতদের বার্তাযুক্ত সার্চ রেজাল্ট প্রদর্শন করে। এতেও যদি না হয় তাহলে Bengali Classified Ad Site যেমন : Bikroy.com, Ekhanei.com, Localclassified.com.bd, Clickdhaka.com অথবা Postad.com.bd ইত্যাদীও ট্রাই করতে ছাড়ি না। আর এভাবেই খুজঁতে খুজঁতে যাদের সন্ধান আমরা পাই, তাদের অধিকাংশই প্রতারক ও ভন্ড ব্যবসায়ী মাত্র ! আসুন আগে বাড়াই… ।

দামদর কষে সুলভ মুল্যে একখানা পাইয়োনিয়ার কার্ড নেবার পর দেখা গেল বাহ্ ভালইতো কাজ চলছে। ভাবনায় আসতেই পারে, এখানে আবার প্রতারনার কি আছে! আসুন তবে প্রতারণার নুনটা একটু চেখে দেখি।

১. স্বাভাবিক ভাবেই একজন গ্রাহকের জন্য একটিই মাষ্টার কার্ডের অনুমোদন থাকে।এর বাইরে গেলেই তা অবৈধ।তাই যাদের পেশায়ই মাষ্টার র্কাড বিক্রয় করা,তারাতো নিজের এক কার্ড সবাইকে দিবে না। সুতরাং তারা যেই কার্ডগুলো আপনাকে দিবে তা নিঃশন্দেহে আইনত অবৈধ। আর অবৈধ জিনিস মানেই ঝামেলা।

২. অধিকাংশ ক্ষেত্রে আসল কার্ডের মালিক নিজেও জানেন না যে তার আইডি ব্যবহার করে কেও পেওনিয়ার কার্ডের আবেদন করেছে এবং তা ব্যবহারও করছে ! ভাবতে পারেন ব্যপারটা কতখানি সাংঘাতিক। কম্পিউটারের দোকান থেকে পাঠানো সাধারণ জনগনের ভোটার আইডি বা পাসপোর্ট এর স্ক্যান কপি টাকার বিনিময়ে প্রতারকেরা সংগ্রহ করে তা দিয়েই শত শত কার্ডের আবেদন করে ব্যবসা করে থাকে। যা রিতিমত অবৈধ ও মারাত্বক।

৩. কার্ডের সত্যিকারের মালিক যদি কোনদিন তার নিজের আইডি ও ফটো দিয়ে Payoneer Mastercard Apply করে তবে, তথ্য যাচাই বাছাই শেষে ঐ কার্ডের মালিক কিন্তু আপনি আর থাকছেন না। আাচমকাই হঠাৎকরে একদিন দেখবেন যে আপনার হাতের অবৈধ কার্ডটি আর কাজ করছে না।

৪. পেওনিয়ার মাষ্টারর্কাড বিক্রেতা ইচ্ছা করেই কার্ডের সাথে ভেরীফাই কাগজ পত্র দেয় না। যা পরবর্তীতে কার্ডটি সচল বা বন্ধ করার ক্ষেত্রে অন্যতম জরুরি জিনিস।

৫. কার্ডটি যখন মোটামুটি ভালই কাজ করছে ঠিক তখনি অথবা কয়েক মাস পর দেখলেন কার্ডটি আর কাজ করছে না। এটা কার্ডের ত্রুটিও নয় কোম্পানিরও নয়।কার্ডটি যার কাছ থেকে কিনেছেন,ঐ কার্ডের আবেদনের কাগজ পত্র দিয়ে সেই বিক্রেতায়ই আবার পেওয়োনিয়ার কোম্পানীর কাছে কার্ড হারিয়ে যাবার নাটক করে কার্ডটি বন্ধ করে দিয়েছে।উদ্দেশ্য,আপনার কাছে যাতে আবারও আরেকটি কার্ড বিক্রি করা যায়।বন্ধ হওয়া কার্ড টিতে যদি ব্যালান্স না থাকে তাহলে তো একভাবে বাচঁলেন।আর যদি কার্ডে ব্যালান্স থাকে তবে তো অফার সহ বাঁশ খেলেন।

৬. কার্ডের ইমেইল বা পাসওর্য়াড যদিও বা নিলেন,আপনার সকল লেনদেন তথ্য গোপনে Email Forward হয়ে তার কাছেও পৌঁছাতে লাগল।যা আপনার কার্ড ও ব্যালান্সের জন্য হুমকি স্বরুপ।যে কোন দিন ঐ কার্ডের বিক্রেতা আপনার ইমেইল এর পাসওয়ার্ড ভেঙ্গে আপনার টাকা কার্ড থেকে চুরি করে নিয়ে যাবে।আর এটা কোন ব্যাপারই না যদি,তার কোন মোবাইল নাম্বার দিয়ে কার্ডের ইমেইলটি ভেরিফাই করা থাকে।আর ঠিক এই কারনেই অধিকাংশ বিক্রেতাগন Microsoft Outlook Email Service এর ইমেইল দিয়ে একাউন্ট খুলে থাকে। Outlook Email এর ভেরিফিকেশন মোবাইল নাম্বার একমাসের আগে পর্রিবতন করা গেলেও একটিভ করা যায় না।সুতারাং রিস্ক থেকেই যাচ্ছে।

তাহলে উপায় কী?

খুব সোজা।
প্রতারকদের অবৈধ কার্ড কেনা বন্ধ করুন।নিজের ভোটার আইডি কার্ড অথবা পাসর্পোট দিয়ে নিজের জন্য একটি বৈধ কার্ড এর আবেদন করুন। আর সেটাও সম্পূর্ণ ফ্রি তে । একাধিক কার্ডের প্রয়োজন হলে আত্নীয় স্বজনদের আইডি দিয়ে তাদের নামে কার্ডের আবেদন করুন।তবু পকেটের টাকা খরচ করে বাঁশ খাবেন না দয়া করে।

নতুন একটি পেওয়োনিয়ার প্রিপেইড মাষ্টার কার্ডের জন্য Apply Now To Get a Free Payoneer Mastercard Wtih $25 Dollar Bonus লিংকটি ব্যবহার করে আবেদন করতে পারেন। এই লিংকটি ব্যবহার করে কার্ডের আবেদন করলে ২৫ ডলার ফ্রি পাবেন।যা আপনার কার্ডের মূল ব্যালান্সের সাথে যোগ হবে এবং আপনি তা পুরোপুরিই খরচ করতে পারবেন।

আপনার জানা থাকা মাস্টারকার্ড সম্পর্কিত আরো প্রতারণার কথা জানা থাকলে, কমেন্ট করে জানাবেন। এছাড়াও এ বিষয়ে আপনার গুরুত্বপূর্ণ মতামত জানাতে ভুল করবেন না।

Facebook Comments

You may also like

Dollar Sell Scams In Bangladesh

বাংলাদেশে ডলার ক্রয় বিক্রয় প্রতারনা Online Dollar Sell